Translate

Wednesday, November 25, 2020

সোশাল কমিউনিকেশন এবং ইন্টারনেটে সোশাল মিডিয়া কম্যুনিটি বলতে কি বোঝেন?

সোশাল কমিউনিকেশন বলতে সাধানত বোঝানো হয় একটা সোসাইটিতে সকলের সাথে যোগাযোগ রাখা। বাংলাদেশে অনেক ধরনের সোসাইটি আছে। বাংলাদেশে কিছু কিছু সোসাইটির অনেক খারাপ মিনিংও আছে। কয়েকজন মিলে উল্লেখযোগ্য একটা সংখ্যা হলে সেখানে একটি সোসাইটি বা কম্যুনিটি ফর্ম করা যায়। যখন ছোট ছিলাম তখন একটা শব্দ প্রায়শই শুনতাম বাংলাদেশে যে : সোসাইটি গার্লদের কাছ থেকে যেনো দূরে থাকা হয়। কারন জিজ্ঞাসা করলে বলতো খারাপ। তখনকার দিনে যতোটুকু বুঝেছি তাতে যা বোঝলাম সোসাইটি গার্ল রা সবার সাথে মেলামেশা করে এই ব্যাপারটাকে বাংলাদেশের একটা মহল খারাপ মনে করে। কয়েকজন সোসাইটি গার্লের সাথে পরিচিতও হলাম এবং বুঝতে পারলাম যে তারা ফ্রিডম ভালোবাসে। পরে যারা খারাপ বলতো তাদের ব্যাপারে খোজ খবর নিয়ে জানলাম তারা বাংলাদেশের নাগরিক না। ছলে বলে কৌশলে এবং দুই নম্বরি ওয়েতে এখনো বাংলাদেশে টিকে আছে। তারা এসেছে আমাদের দেশের শতরু দেশ থেকে।  তারা বাংলাদেশ কে তাদের নিজেদের দেশ মনে করে অথচ বর্তমানে আমাদের এই দেশে তাদের বসবাস করার কোন অুনমতি নাই। তাদের কোন বৈধ নাগরিকত্ব নাই এবং বৈধ জাতীয় পরিচয়পত্র বা ভোটার রেজিষ্ট্রেশন নাম্বার ও নাই। তারা বাংলাদেশে বেচে থাকার জন্য বা অবস্থান করার জন্য যে কাগজপত্র গুলো শো করে সেগুলো আমাদের শতরু দেশের কাগজপত্র এবং খোজ নিতে গেলে জানতে পারবেন যে: সেই সকল কাগজপতত্রেরও সেই দেশে কোন বৈধতা নাই।


বাংলাদেশ সরকারকে এক ধরনের বোকা বানিয়ে তারা দিনের পর দিন বসবাস করে যাইতাছে আর যতো ধরনের আকাম, কুকাম আছে তা তারা করে যাইতাছে। কিছু বলতে গেলে তারা একটা অবৈধ নাগরিকদের সমাজ দেখায় যারা বাংলাদেশে থাকার যোগ্যতা হারিয়েছে ১৯৯০ ( ৯০ এর গনজাগরন। ৭১ এর  দেশবিরোধী দালাল/রাজাকারের ফাসি)  সালে বা ২০১৩ সালে (শাহবাগ গনজাগরন। ৭১ এর  দেশবিরোধী দালাল/রাজাকারের ফাসি)  আবার  তারাই নাটক সিনেমা পাড়ার মেয়েদেরকে খারাপ বা বাজে মন্তব্য করতো আর আড়ালে আবডালে নিজেরা খারাপ কাজ করে বেড়াতো। তারা বুঝতে পেরেছিলো যে: বাংলাদেশে কম্যুনিটি পাওয়ার অনেক বড় পাওয়ার। মানুষের সাথে মানুষের যোগযোগ থাকবে আবার মানুষের সাথে মানুষের মেলবন্ধনে সোসাইটি তৈরী হবে। সেই সোসাইটি এবং কম্যুনিটি পাওয়ার কে ভাংগার জন্য তারা একটি কুৎসিত সমাজ ব্যবস্থা তৈরী করে নিয়েছে যাকে বর্তমান বাংলাদেশে এ .... হোল নামে চিনে যা ধর্মীয় ভাবে কুৎসিত পন্থা। বাংগালী এতোই ভদ্রতার পরিচয় দিয়েছে যে: তাদেরকে ঘৃনা করে হাত নোংরা হবে বলে না মেরে এখন পস্তাইতাছে। 


থানা শাহবাগ ঢাকা ১১০০ তে জন্ম নেওয়া ২০১৩ সালের গনজাগরন আন্দোলনে একটি বিরোধী মহল ইন্টারনেটে এবং বাস্তবে এইটার একটা বিরোধিতা করে। এই মূহুর্তে হয়তো ৭০% দালাল (ফাসি) বা রাজাকার (ফাসি) কে হয়তো আজরাইলের বা বাংলাদেশ সরকারের ফাসির তলে যাইতে হয়েছে এবং গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের ভেতরে যে সকল তালিকাগ্রস্থ দালাল রাজাকার এর সন্তান ছিলো  (সম্ভবত কর্মরত) এবং বাহিরে যারা রাজাকারের ফাসির বিরোধিতা করেছে তারা একজোট হয়ে একটা কম্যুনিটি গঠন করে বলে ইন্টারনেটে বসে বুঝতে পারি।  তাদের বর্তমানে কাজ হইতাছে সারা দিন ইন্টারনেটে বসে থেকে থেকে আমাদের দেশের জয় বাংলা পন্থীদের ক্ষতি করে যাওয়া যাকে তারা তাদের নিজস্ব কম্যুনিটি বলে প্রকাশ করে থাকে নিজেদের মধ্যে। তারা কখনো জনসম্মুক্ষেআসে না। প্রকাশ্য দিবালোকে কিছু বলে না। আবার টিভি ক্যামেরা বা সাংবাদিকদের সামেনও তারা কিছু বলতে সাহস পায় না। ফলে তারা একটি জাত গোখরার মতো হিডেন সোসাইটির রুপ ধারন করে বাংলাদেশের সমাজে বসে আছে। 


শাহবাগ গনজাগরন ২০১৩ সালের আন্দোলন থেকে দাবী জানানো হয়েছিলো যাদের বাবারা তালিকাগ্রস্থ দালাল রাজাকার তাদেরকে চাকুরী থেকে বহিস্কার করার জন্য। তখণ অনেকেই বলেছিলো যে: তাদের বাপ দাদারা দেশবিরোধী  রাজাকার ছিলো তারা তো আর রাজাকারি করে নাই।   মানব শরীরে রক্তে যদি কোন দোষ থাকে তাহলে পুরো শরীরের রক্তই পরিবর্তন করতে হয়। তেমনি বাংলাদেশের অন্ত্রে গা হয়েছিলো বাংলাদেশের সোসাইটিতে ১৯৭২ সাল থেকে দালাল (ফাসি) এবং রাজাকারদের (ফাসি)  অবস্থানের কারনে। যেই ক্ষত নারানো হয়েছিলো কিছুটা ১৯৯০ এবং ২০১৩ সালের গনজাগরন আন্দোলনের মাধ্যমে কিন্তু সেই ক্ষত আজো রয়ে গেছে বাংলোদেশের সোসাইটিতে অনেক পরিমান দালাল (ফাসি) এবং রাজাকারদের (ফাসি) বেচে থাকার কারনে এবং গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের বেতরে তাদের সন্তানদের অবস্থানের কারন। তারা যে আমাদের দেশের বিভিন্ন তথ্য সেই গনজাগরন বিরোধীতাকারী বা বহির্দেশীয় শতরুদের হাতে তুলে দিতাছে না তার কোন গ্যারান্টি নাই। প্রকাশ্য দিবালোকে মিথ্যা কাগজ পত্র প্রদর্শন করে সমানে বসবাস করে যাইতাছে আর বাংলাদেশ সরকার দেখেও না দেখার ভান করতাছে। 





শাহবাগ গনজাগরন থেকে উথ্থাপিত প্রতিটি দাবী যদি আপনি সফল না করেন তাহলে আপনি বাংলাদেশের অবমুক্তি কখনো দেখতে পারবেন না। ঘরের শতুর বিভীষন এর মতো সেই সরকারের ভেতরে অবস্তানকারীরা তাদের পরবর্তী প্রজন্ম তৈরী করতাছে যাদের ও কাজ হবে একইরকম: দেশেল ভেথরে বসে গ্যানজাম তৈরী করা আর সারাক্ষন ইন্টারনেটে বসে নজরদারী ফলানো। আমাদের দেশের একটা মহল খুব রক্তচোখার মতো তারা তাদের ঝীবনের বিনিময়ে হলৌ বাংলোদেশের সমাজে দালাল (ফাসি) এবং রাজাকারদের (ফাসি) কে বসবাস করতে দিবে, খাইতে দিবে এমন কি যৌন সুবিধাও দিবে (শুনেছি রাজাকারদের (ফাসি) বাচ্চা হয় না কখনো) আর তাদের সন্তানদের (যাদের বৈধ জাতীয় পরিছয়পত্র নাই) দিন রাত ২৪ ঘন্টা ইন্টারনেটে বসে তাফালিং করতে দিবে - বর্তমানে সীম এবং মোবাইল ভেরিফিকেশন ছাড়া কাউকে ইন্টারনেট কানকেশন দেয়া হবে না বলে আইন প্রনেতারা কাজ করে যাইতাছে। 


কিন্তু আইএসপি (ISP- Internet Service Providers)দের মধ্যে অনেকেই আছে যারা জাতীয় পরিপয়পত্র নাম্বার ভৈরিফিকেশন ছাড়াই ইন্টারনেট কানেকশন দিয়ে থাকে। সামান্য কিছু টাকার জণ্য পুরো দেশের ইন্টারনেট নিরাপত্তা এবং বিশ্বের অন্যতম বড় ভার্চুয়াল ষ্টেশনের ইন্টারনেট ক্ষতি সাধরেন সামান্য তম হেসিটেট ফিল করে না। সামান্যতম দ্বিধাবোধও করে না যে বাংলাতে থাকতাছে, বাংলাতে খাইতাছে, বাংলাতে বসবাস করতাছে, বাংলাতে নি:শ্বাস নিতাছে কিন্তু বাংলার বিরোধিথাকারীদের ইন্টারনেট কানেকশনও দিতাছে। ৭১ এর দালাল রাজাকার এর ফাসি কার্যকর করার সাথে সাথে সেই ভয়ংকর বিষধর গ্ররপটাকে ও বাংলাদেশ থেকে উপড়ে পেলে দিতে হবে। বৈধ জাতীয় পরিচয়পত্র নাম্বার ছাড়া বাংলাদেশে কাউকে ইন্টারনেট ব্যবহার করতে দেয়া হবে না- যদি অণ্য দেশেল নাগরিক হয় তাহলে তাদের কে সেই দেশের নাগরিকত্ব ডাটাবেজে ভেরিফিকেশণ করতে হবে , তাদের সেই দেশে ভোটার নাম্বার আছে কিনা তাও পরীক্ষা করে দেখতে হবে। আর নয়তো এ ব্যাপারে বাংলাদেশে বৃহৎ আকারের আন্দোলন গড়ে তোলার ব্যাপারেও ভাবতে হবে কারন এইটা সারা দেশের ১০ কোটি মানুষের ইন্টারনেট নিরাপ্তার বিষয়। অনেক ধলনরে ইন্টারনেট ব্যবসা সংক্রান্ত বিষয়ে এই ধরননের অবৈধ নাগরিকেরা অনেক ধরনরে খারাপ ফ্যাসিলিটজ আদায় করতে পারে বা হয়তো প্রতিনিয়ত করে যাইতাছে। 


২০১৩ সালে ইন্টারনেট থেকে তৈরী হওয়া পৃথিবীর অন্যতম বড় গনজাগরন শাহবাগন গনজাগরন ২০১৩ এর বিরোীধিতাকারী কম্যুনিটি ইন্টারনেটে সুবিধাজনক অবস্থানে আছে বলে অনেক সময় আমার কাছে মনে হয়। যদি তারা ইন্টারনেটে একটিভ থাকে তাহলে তারা বিশ্বের বিভিন্ন নামী দামী প্রতিষ্টানের কাছে উল্টা পাল্টা কাগজপত্র তৈরী করে এবং তা সাবমিটও করে থাকতে পারে যেখানে অনকে দেশের অনেক ফরেনার সোসাইটি না বুজে শাহবাগ গনজাগরনরে জণ্য প্রাপ্ত সুবিধাদি তাদের কে দিয়ে তাকতে পারে যে ব্যাপারে অনুসন্ধান করে সেগুলোর অলটারনেটিভ সিচুয়েশন ম্যানেজ করতে হবে। প্রয়োজনে সারা বিশ্বে অলটারনেটিভ ইন্টারনেট ব্যবস্থাও গ্রহন করা যেতে পারে।   জাতীয় পরিচয়পত্র নাম্বারের (বৈধ) উপর ভিত্তি করে আমাদের ও উচিত ইন্টারনেটে হাজার হাজার কম্যুনিটি গড়ে তোলা যেনো বাংলা মায়ের সন্তানেরা বাংলাদেশের জণ্য প্রাপ্ত সুবিধাগুলো ব্যবহার করতে পারে। এক কথায় বাংলাদেশের জন্য প্রাপ্ত সুবিধাগুলো ব্যবহার করতে গেলে অবশ্যই আপনাকে বৈধ জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর ধারী এককথায় বৈধ বাংলাদেশী ণাগরিক হতে হবে। অন্যথায় বাংলাদেশের নাম ব্যবহার করে দালাল (ফাসি) এবং রাজাকারদের (ফাসি) সন্তানেরা ইন্টারনেটে থেকে বিপুল পরিমানে ফ্যাসিলিটজ আদায় করে নিতাছে যা হয়তো আগামী ১০০ বছরেও রিকভার করা যাবে না্ আর ১০০ আগামী বছর তো আমরা বাচবোও না। এ ব্যাপারে উদ্যোগ নিবে: 

  • Ministry of Technology. Peoples of the Government Republic of Bangladesh.
  • ISP Association of Bangladesh.
  • Cyber Cafe Owners Association of Bangladesh.
  • All types of Bangladeshi Internet society. 
স্বজ্ঞানে স্বইচ্চায় যে সকল আইএসপি মালিকেরা এই ধরনের দেশবিরোধী চক্রকে ইন্টারনেট সুবিধা প্রদান করতাছে তারা এক কথায় বিশাল ক্ষতি করে যাইতাছে দেশের ভেতরে। সন্দেহ অনুযায়ী আসলেই দেশের সকল তথ্য বা ইনফরমেশন পাস হয়ে যাইতছে। প্রাইভেসী বা সিক্রেসী বলতে কিছুই থাকতাছে না। যে সকল মোবাইল কোম্পানীও এই ধরনের কাজ করতাছে তারাও আমাদের দেশের বিশাল ক্ষতি  করে যাইতাছে। 

আমি বৈধ জাতীয় পরিচয়পত্র নাম্বার ছাড়া আর বৈধ ইউরোপিয়ান এবং আমেরিকান ছাড়া বাকী সকলের ইন্টারনেট ব্যবহার লিমিট করার জন্য আহবান করি আর এই ব্যাপারে সকল ধরনের ইন্টারনেট সোসাইটির এক্টিভিটিও আশা করি। তাতে করে আমাদের মধ্যে পারস্পরিক সোশাল কমিউনিকেশন এবং ইন্টারনেট সোশাল মিডিয়া কম্যুনিটি গুলো দালাল (ফাসি) এবং রাজাকারদের (ফাসি) সন্তানদের দ্বারা তৈরী করা কুচক্রী মহল থেকে হেফাজত করা যাবে এবং ইন্টারনেটে বাংরাদেশের অবস্থান দিনে দিনে শক্ত হবে। 

(চলবে)

No comments:

Post a Comment

Thanks for your comment. After review it will be publish on our website.

#masudbcl

Marketplace English Tutorial. Freelancing.Outsourcing.

আমার ইউটিউব চ্যানেলে ৫০০০ ভিউজ থেকে ৩২০০০ মিনিটস এক মাসে।

 এক মাসে আমার চ্যানেলে ৩২০০০ মিনিটস। আমার নিজেরই বিশ্বাস হইতাছে না। ৫১০৫ ভিউজ থেকে আমি পেয়েছি ৩২০০০ মিনিটস। যদি ৬০ মিনিটস দিয়ে ভাগ করি ৫৩৩ ঘ...