Translate

Monday, December 21, 2020

মার্কেটপ্লেস ওয়েবসাইট গুলোতে ক্লায়েন্টদের বিহেভিয়ার কেমন থাকে?

ইন্টারনেটে মার্কেটপ্লেস ওয়েবসাইট গুলোতে ক্লায়েন্ট দের বিহেভিয়ার মাঝে মাঝে অনেক ভালো ও হয়, আবার মাঝে মাঝে অনেক খারাপ ও হয়। তবে প্রফেশনালিজম এমন এক ব্যাপার যেখানে ক্লায়েন্টর সাধ্য নাই আপনাকে খারাপ রিভিউ দিবে। মার্কেটপ্লেস ক্লায়েন্টের ব্যবহারের ব্যাপারে আমার নিজস্ব অভিজ্ঞতা শেয়ার করবো আজকে। প্রথম ৪.৫ ষ্টার রিভিউ পাই ইল্যান্স মার্কেটপ্লেসে। নিয়মিত ভাবে ৫ ষ্টার রেটিং পাবার পরে হঠাৎ করে একটা ৪.৫ ষ্টার রিভিউ আপনাকে থামাইয়া দিতে পারে। আমার ক্ষেত্রে ও তেমন হলো একবার। কেনো সাধারন মানুষ মনে চাইলেই ক্লায়েন্ট হতে পারে না। মার্কেটপ্লেস নিজে আপনার কাছে যাবে বিজ্ঞাপন আকারে- আর আপনি আপনার ব্যবসা প্রমোট করার জন্য মার্কেটপ্লেসের সাহায্য নিয়ে থাকবেন। আপনি আপনার ব্যবসার কাজে ব্যস্ত থাকার দরুন কয়েকজন প্রফেশনাল  হায়ার করে তাদেরকে ইন্টারনেটে কাজ দিয়ে রাখলেন। আপনার খুব বড় সড় কোন কোম্পানী আছে মনে করেন। তাহলে সেই কোম্পানী তে ইন্টারনেট প্রমোশনের জন্য আপনি মার্কেটপ্লেস ওয়েবসাইট থেকে কিছু ফ্রি ল্যান্সার হায়ার করলেন।  তারা আপনার নির্দেশ  মোতাবেক  আপনার কাজ গুলো করা শুরু করলো। আপনি যদি নিজেই নিজেকে ক্লায়েন্ট মনে করে তাকেন তাহলে আপনাকে মার্কেটপ্লেস কখনো ক্লায়েণ্ট বলবে না। কারন কারন থাকা স্বাপেক্ষে বা প্রয়োজন তাকা স্বাপেক্ষে মার্কেটপ্লেসে ক্লায়েন্ট তৈরী হয়। এক ব্যক্কলের কাহিণী বললে আপনার পুরো জিনিসটা আরো ক্লিয়ার হবে। 



ঘটনাটা কাল্পনিক। ঘটনার সাথে আপনি নিজেকে মেলানেরা চেষ্টা করবেন না। 

২০১১ সালে একদিন থানা শাহবাগে র আড্ডাতে বসে আড্ডা দিতাছি। তখন হিজড়া টাইপের এক লোক আইসা বসলো। দেখে কেমন জানি একটা খারাপ ফিলিংস হলো। তারপরেও জিজ্ঞাসা করলাম যে এই লোক কে? তো সে কাছে আইসা বলতাছে যে: আপনি কি করেন? তো আমিিউত্তর দিলাম যে: আমি ফ্রি ল্যান্সার। আউটসোর্সিং এর কাজ করি। তো বলতাছে: কোন ওয়েবসাইট। তো আমি বললাম যে: ইল্যান্স এবং ওডেস্ক। কিভাবে কাজ করে ওয়েবসাইট গুলো। ডিটেইলস জানালাম। তার প্রশ্ন করার ষ্টাইল দেখে থানা শাহবাগের বড় বাই বোনেরা তারে বললো যে: তুই এই দেশের সবচেয়ে  বড় হিজড়া সেই লোককে সে লোক আামকে ক্রমাগত প্রশ্ন করতাছিলো। তো শেষে বলতাছে যে: আমিও একজন ক্লায়েন্ট হেবা। তো আমি জিজ্ঞাসা করলাম যে: আপনার কিসের ব্যবসা? তো বলতাছে: তার হিজড়াঘটিত ব্যবসা। তো আমি বললাম যে: এই ধরনের কোন কাজ তো ওডেস্কে বা ইল্যান্সে বা মার্কেটপ্লেস ওয়েবসাইট গুলোতে নাই। তো সে উত্তর দিতাছে যে: সে এই দরনের স্কোপ তৈরী েকরবে। তো আমি বলতাছি: কারন কি? তো বলতাছে যে সে আমেরিকা কে ঘৃনা করে। আমেরিকান এই সকল টেকনোলজী সে বাংলাদেশে চলতে দেবে না। সে এই টেকনোলজী বদলে দেবে। আমি বললাম: কারন ? তো সে বলতাছে: সে স্বাধীনতাযুদ্বের বিরুদ্বে অবস্থান করে। তো বাংলাদেশের ছেলে বা মেয়েদের উপকার সে হইতে দেবে না। তারপরে বললাম যে: তুই তো বাংলোদেশ থেকে কোন কেডিট কার্ড পাবি না? তাহলে তুই মার্কেটপ্লেসের ক্লায়েন্ট হবি কি করে? তো সে উত্তরে বলতাচে: তার জন্ম পা কিস্তানে। সে পা কিস্তানী পে পাল ব্যবহার করে ক্রায়েন্ট হবে। তো আমি উত্তরে বললাম: তুই এই দেশে শুধূ দেশবিরোধী(ফাসি) বা রাজাকার (ফাসি) বা দালাল (ফাসি)  এবং তাদের প্রজন্মের ক্লায়েন্ট হতে পারবি। জয় বাংলা বা স্বাধীন বাংলা ছেলে পেলেদের ক্লায়েন্ট শূধূ ইউরোপ আমেরিকাই হবে কারন সৃষ্টিকর্তা তাদেরকে বানাইছেও  সুন্দর আর তাদরে ব্যবসা পাতিও অনেক বড় সড়। তারা এমনতেই বড়লোক। ক্লায়েন্ট হইতে প্রথম যে যোগ্যতাটুকু লাগে তা হইতাছে বড়লোক হওয়া। মনে চাইলাম আর ক্লায়েন্ট হয়ে গেলাম: ভ্যাপারটা এতো সোজা না। কারন ইন্টারনেট তোর চেয়ে অনেক বেশী বুঝে এবং সে জানে ইন্টারনেটে কার কি ইনটেনশন? তারপরে সে চলে গেলো আর তার হাটা চলা এবং চলা ফেরা দেখে তাকে উপাধি দেয়া হলো: বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় হিজড়া। আর তার সাথে যারা মিশবে তারা ও হবে হিজড়া কোয়ালিটি।  



ক্লায়েন্ট  বা বায়ারের উপর ভিত্তি করে চলে মার্কেটপ্লেস ওয়েবসাইট। এফিলিয়েট টাইপের ওয়েবসাইটগুলোতে ক্লায়েন্ট বা বায়ার থাকে না। অফিস আদালতে যেমন কাজ করতে হয় তেমন মার্কেটপ্লেসগুলোতে ও পুংখানুপূংখ ভাবে কাজ করতে হয়। যদি আপনি এইখানে ঠিকমতো কাজ না করেন তাহলে আপনি এইখানে ব্যাড রিভিউ বা রিমার্কস খাইতে পারেন। আর একবার যদি কারো কপালে ব্যাড রিমার্কস জুটে তাহলে আর সেটা রিকভার করা যায় না। ব্যাড রিভিউ বা ব্যাড রিমার্কস কে অনেকটা লাল কালি বলা চলে এই খানে। বাংলোদেশে বহুল প্রচলিত মার্কেটপ্লেস ওয়েবসাইট গুলো সব আমেরিকান ষ্ট্রাটিজী অনুযায়ী চলে কারন সবগুলোতেই ডলারে উইথড্র চলে। শুধূ বাংলাদেশী টাকার উপরে ভিত্তি করে কোন মার্কেটপ্লেস এখনো তৈরী হয় নাই। অনেক ক্লাসিফায়েড ওয়েবসাইট বা দারাজ টাইপের ওয়েবসাইট সেই চাহিদা টুকটাক পূরন করার চেষ্টা করতাছে। বাংলাদেশী ছেলে রা বা মেয়েরা আমেরিকান মার্কেটপ্লেস ওয়েবসাইট গুলোতে ক্লায়েন্ট হওয়া এক ধরনের হাস্যকর কারন যারা ইউরোপিয়ান বা আমেরিকান বায়ার বা ক্লায়েণ্ট তাদের প্রত্যেকের এতো পরিমান সম্পদ বা সুবিধা আছে যা বলার মতো না যেটাকে আমার বলি মার্কেটপ্লেস ক্লায়েন্ট ওয়ার্ল্ড। তাদের সাথে যদি আপনি প্রতিযোগিতা বা রেস করতে চান তাহলে আপনার এই দেশে বা স্থাবর অস্থাবর যা আছে সব বেচে  দিতে হবে। 


(চলবে)


No comments:

Post a Comment

Thanks for your comment. After review it will be publish on our website.

#masudbcl

Marketplace English Tutorial. Freelancing.Outsourcing.

একদল টেষ্টটিউব হ্যাকারের কল্পকাহিণী

 একদল হ্যাকার এক দেশের সরকারের সব সুবিধাদি ভোগ কররা পরে চিন্তা করতাছে যে: কিভাবে মানুষ হবে? মানুষ হবার কারন হলো: তারা সকলে টেষ্টটিউব। যেহেতু...