Translate

Friday, September 25, 2020

ইন্টারনেটের কারনে জনজীবনের পরিবর্তন। বাংলাদেশে কি কি ধরনের মোবাইল ব্যাংকিং?

 কি কি ধরনের মোবাইল ব্যাংকিং সার্ভিস আছে বাংলাদেশে -

যখন প্রথম প্রথম কাজ শুরু করি  ফ্রি ল্যান্সার রিলেডেট মার্কেটপ্লেসে- তখন প্রথম আমরা যে জিনিসটার অভাব বোধ করি তা হইতাছে ডলার রিসিভ করা এবং পারস্পরিক সেন্ড মানি এবং রিসিভ মানি - যে কোন ব্যাংক বা যে কোন মোবাইল ব্যাংকের মাধ্যমে। তখন কোনো উপায় না পেয়ে বাস্তবে পারস্পরিক লেনাদেনা করতে হতো বা এস এ পরিবহনে টাকা পয়সা লেনাদেনা করতে হতো নির্দিষ্ট টাকার বা চার্জের বিনিময়ে। মোবাইলের কল চার্জ ছিলো ৭ টাকা মিনিট। আমি রবি ব্যবহার করতাম তখন চার্জ ছিলো; ৬.৯০ পয়সা পার মিনিট। তারপরেও হাজার হাজার ছেলে পেলে হাজার হাজার টাকা খরচ করে মোবাইলে কথা বলতো এই ফ্রি ল্যানসার এবং আউটসোর্সিং ইন্ডাষ্ট্রিজ কে প্রতিষ্টিত করার জন্য। ২০০২ সাল থেকে শুরু হওয়া ষ্ট্রাগলে সরকারি সহযোগিতা আসে ২০১১ সালের (কায়রো গনজাগরনের সময়কালে- যতোদূর শুনেছি কায়রো গনজাগরনের সরাসরি নির্দেশ ছিলো বাংলাদেশের ফ্রি ল্রান্সারদের সাহায্য করা অবকাঠামোগত উন্নয়নের জন্য) দিকে। তার আগে পর্যন্ত ফ্রি ল্যান্সার রা সরকারের চরম অবহেলার স্বীকার থাকে। কোন ভাবেই সরকারের কোন মন্ত্রনালয়ের তেমন কোন সহযোগিতা পাওয়া যাইতো না। অনেক কষ্ট করে শুধু ইন্টারনেট ম্যানেজ করেই চলতে হতো। ইন্টারনেট যেখানে থাকতো সেখানে ফ্রি ল্যান্সারদের আড্ড বসতো। আজকে যারা নিজেদেরকে ফ্রি ল্যান্সার জগতের হেডম বলে ঘোষণা করে - তারা মনে হয় ২০০২-২০১১ সাল পর্যন্ত নাকে তেল দিয়ে ঘুমাতো আর বিছানায় প্রস্রাব করতো। একসময় এই ইন্ডাষ্ট্রিজ  এষ্টাবলিশ হবে আর সারা দেশের সকল ছেলে মেয়েরা কাজ করবে বা ডলার উপার্জন করবে এইটা ছিলো প্রথম দিন থেকেই বাংলাদেশী শিক্ষিত জগতের স্বপ্ন। আজকে তাদের স্বপ্ন বাস্তবায়িত হয়েছে অনেকটা। এস এ পরিবহনের মাধ্যমে একজন আরেকজন কে খরচের টাকা পাঠাতো বা ইন্টারনেটের বিল পাঠাতো বা মোবাইলের খরচ পাঠাতো এক জেলা থেকে আরেক জেলা তে। সরকারি দিনে ২৪ ঘন্টার মধ্যেই সেই টাকা পাওয়া যাইতো আর ছুটির দিন হলে ২/৩ দিন দেরী হতো। প্রথমে এস এ পরিবহনের লোকাল অফিস থেকে কল দেয়া হতো। তারপরে বাসা থেকে বের হয়ে সেই টাকা যদি কোথাও ডলার বেচা হয়ে থাকে - তাহলে সেটা তুলে আনতাম। মানে আমি কখনো কারো কাছ থেকে এস এ পরিবহনে ডলার বেচার টাকা ছাড়া অন্য কোন টাকা রিসিভ করি নাই (আরো ছিলো সাথে সুন্দরবন কুরিয়ার)। তখন বসে বসে ভাবতাম - হাতে মোবাইল আছে কিন্তু ব্যাংক নাই। তখনো ডাচ বাংলা ব্যাংক চালু ছিলো। কিন্তু অনেক খরচ স্বাপেক্ষ ব্যাপার ছিলো। আরো একটা উপায় ছিলো- মোবাইলের ফ্লেক্সি কার্ডের নাম্বার। ধরেন একজনের কাছ থেকে ১০ ডলার কিনলাম। তাকে টাকা দিতে হবে ৭০০। তখন ডলারের রেট ছিলো ৭০ টাকা করে। এখন তাকে পেমেন্ট দেবার জন্য তাকে মোবাইলের কার্ড নাম্বার কিনে দিতাম। মোবাইলের দোকানে যাইয়া ৩০০ টাাকর ২ টা কার্ড আর ১০০ টাকার ১ টা কার্ড কিনে আনলাম। তারপরে সেই কার্ড ঘষে যে নাম্বার যাকে রিচার্জের নাম্বার বলা হতো - সেটা স্কাইপে বা ইমেইলে বা মোবাইলের ম্যাসেজের মাধ্যমে তা সেন্ড করা হতো একজন আরকেজনকে। ফলে পেমেন্ট হয়ে যাইতো। অনেক ভাবে চেষ্টা করেও তখন সরকারি লোকজনের কোন টনক নড়ানো যায় নাই্। আর এখন যখন কিছু কিছু  লোকজন সাথে ঠ্যাটা রাজনীতিবিদ দের যখন এই ব্যাপারে কথা বলতে দেখি তখন অনেক সময় গলা ভরে বমি বের হয়ে আসতে চায় যে- যে লোক এক ডলারও উপার্জন করতে পারে নাই সে হাতে মাইক্রোফোন নিয়ে বড় বড় কথা বলতে দ্বিধাবোধ করে না। তারা বোধ হয় ভুলে যায় যে- ফ্রিল্যান্সার টা লোকাল কোন ব্যাপার না। এইটা ইন্টারন্যাশনাল ব্যাপার। এইখানে  রেমিটেন্স কে ক্যাশ করা হয়। একসময় মোবাইল ব্যাংক নিয়ে ভাবতাম আর আজকে মার্কেটপ্লেস থেকে সরাসরি মোবাইল ব্যাংকে ক্যাশ উইথড্র করতে পারে মার্কেটপ্লেসের ফ্রি ল্যান্সার রা। তবে মাঝে মাঝে প্রশ্ন ও জাগে যে- ঠিক কিভাবে মোবাইল ব্যাংকিং এর সাথে মার্কেটপ্লেসের এপিআইকে কাজ করানো হলো। আমরা যখন আগে দেখেছি ফ্রি ল্যান্সার বা ওডেস্ক সহ অন্যান্য মার্কেটপ্লেস থেকে যে- ইটিএস ETS or SWIFT মেথডে বাংলাদেশ ব্যাংক কে এড করাতেই বহুত বেগ পাইতে হইছে। বহুত বেগ। ধরতে গেলে খেয়ে না খেয়ে টানা ৫/৬ বছর খাটতে হয়েছে। আর যারা খেটেছে তারা মে বি আজকে বহুত শান্তি পাইতাছে যখন সারা দেশের অনেক অনেক ছেলে মেয়েরা ডলার উপার্জন করতাছে। হয়তো আপনি একটা শান্তি পাইতাছেন কিন্তু আমি একটা অশান্তিতে থাকি প্রায়শই যখন শুনি যে- রেমিটেন্স হ্যাকের ব্যাপারে এফবি আই এর তদন্ত চলতাছে (আমি ব্যক্তিগতভাবে খখনো কোন হ্যাক কির নাই বা পারিও না এইটা)। ২০০২- থেকে আজ পর্যন্ত যতো ফ্রি ল্যান্সার যতো ডলার  এনেছে বৈধ ভাবে  তারা সকলেই রেমিটেন্স উপার্জন করেছে বা দেশের জন্য সুনাম এনেছে। আপনি ঠিক তখনই এই সেক্টরে মাথা খাটাতে পারবেন যখন আপনি নিজেও ১/২ ডলার রেমিটেন্স আনতে পারবেন। অনেকের মার্কেটপ্লেস একাউন্ট হ্যাক হতে পারে - তাদের ফুল ডিটেইলস ও পরিবর্তন হয়ে যেতে পারে কিন্তু তাদের নামে আসা রেমিটেন্স এর রেকর্ড কে তো আর পরিবর্তন করতে পারবেন না। যদি বাংলাদেশে হ্যাকিং এর জোড়ে তা পরিবর্তন করতে স্বক্ষম হোন তাহলে সেটা বিশ্ব ব্যাংকের কাছ থেকেও পাওয়া যাবে। আর যদি বিশ্ব ব্যাংক ও আপনাকে ডাটা না দেয় তাহলে আমেরিকান ব্যাংক একাউন্ট - যে ব্যাংক আপনার নামে রেমিটেন্স ইস্যু করেছে সেখানে আপনার নাম, ফুল ডিটেইলস এবং একটা ট্রানজেকশন নাম্বার রেকর্ড করে রেখেছে- যাতে দুই দেশের যে কোন কাজে সেটা ব্যবহার করতে পারে। ডলার তো আমেরিকার নিজস্ব মুদ্রা। সেটা সারা বিশ্বের সবাই ব্যবহার করে যেটা আমেরিকার নিজস্ব ক্ষমতা। আর সেই ক্ষমতা ভাংগার মতো ক্ষমতা এখনো অন্য কারো তৈরী হয় নাই। যদি কেউ সেটা ভাংতে পারে বলে ধারনা করা হইতাছে- সেটা হইতাছে বিটকয়েন- যা ইতোমধ্যে ডলার হিসাবে নিজেকে দেখায়। তাই ফ্রি ল্যান্সার ইন্ডাষ্ট্রিজ এর প্রথম দিন থেকেই যারা বাংলাদেশে রেমিটেন্সে এনেছে সেই দিন থেকে যারা রেমিটন্সে এক্সচেন্জ করেছে ফ্রি ল্যান্সার এবং মার্কেটপ্লেস রিলেটেড কোম্পানী থেকে- তারা সবাই ফ্রি ল্যান্সার (যেমন, ওডেস্ক, ইল্যান্স, ফিভার, নাইনটিনাইন ডিজাইন- আপওয়ার্ক তো এসেছে মাত্র ৫ বছর)।তবে ঠিক কিভাবে আপওয়ার্ক থেকে মোবাইল ব্যাংক বিকাশ বা রকেটে টাকা ট্রান্সফার হয় ব্যাপারটা আমার কাছে ক্লিয়ার না (আমি বাইনারি (০ এবং ১ প্রোগ্রামিং কোডিং বা ক্যালকুলেশন, মেশিন এবং অপারেটিং বা সপটওয়্যার রিলেটেড ৩ ধরনের প্রোগ্রামই  শিখেছিলাম ১৯৯৩ থেকে ২০০৬ পর্যন্ত। এখন আর তেমন মনে নাই) বাংলাদেশে যদি কোন সমাবেশ হয় ফ্রি ল্যান্সার রিলেটেড সেখানে ডলার উপার্জন করে রেমিটেন্স হিসাবে বাংলাদেশে আনতে পারে নাই এরকম কাউকে ইনভাইট করা হবে না কখনোই। যারা সবচেয়ে বেশী সফল রেমিটেন্স উপার্জন করেছে তারাই হবে সেরা।

বর্তমানে মোবাইল ব্যাংকিং এ রেমিটেন্স উইথড্র  (আপওয়ার্ক  থেকে বিকাশ বা রকেট) করা যাইতাছে আর অন্যদিকে বিভিন্ন মোবাইল ব্যাংকের একাউন্টে ইন্টারন্যাশনাল মাষ্টারকার্ড বা ভিসা কার্ড এড করে ডলার কে টাকাতে কনভার্টও করা যাইতাছে। ইন্টারন্যাশনাল ক্রেডিট কার্ড বা পাইওনিয়ার টাইপের যতো কার্ড আছে তা যদি আপনি বিকাশে (বা এরকম আরো যতো মোবাইল কোম্পানী) এড করেন তাহলে আপনি সহজেই ডলারকে ক্যাশ করতে পারবেন। তবে বুদ্বিমানের কাজ হইতাছে আমার মতে এড না করা। কারন বিকাশ বা রকেটের এখন পর্যন্ত   বিকাশ বা রকেটের কোন ইন্টারণ্যাশনাল সার্টিফিকেশন চোখে পড়ে নাই আর এইগুলো লোকাল ব্যাংকের পলিসি। সেখানে আপনি আপনার ইন্টারন্যাশনাল ক্রেডিট কার্ড এক্সেস করতাছেন এবং যদি হ্যাকাররা পস মেশিনের  তথ্য বের করতে পারে তাহলে কি লোকাল ব্যাংকের মোবাইল ব্যাংকিং এ্যাপ এর সমস্ত তথ্য বা গ্রাহকের তথ্য কি বের করতে পারবেন না - যদি কোনভাবে এক্সেস পায়। শুধু মাত্র লোকালি ভ্যালিড মাষ্টারকার্ড বা ভিসা কার্ড এড করে দেখতে পারেন এবং তাও ডেবিট কার্ড অনলি। যাতে আপনি কোথাও কোন কারনে কোন ভাবে হ্যাক হলে  আপনার ডেবিট কার্ডে থাকা ডলার ই চুরি হবে আর যে পরিমান ডলার ছিলো সেই পরিমানই নিতে পারবে। কিন্তু ক্রেডিট কার্ডে যদি আপনার ডলার হ্যাক হয় তাহলে আপনার যে পর্যন্ত লিমিট আছে (যদি আপনার লিমিট থাকে ১২০০০ ডলার তাহলে ১২০০০ ডলারই গায়েব হয়ে যাইতে পারে)সেই পর্যন্ত অদৃশ্য হয়ে যাইতে পারে হ্যাকার ধরলে। আর আন্তর্জাতিক ভাবে যতোটা জানি আপনার কেডিট কার্ড হ্যাক হইলেও আপনাকে প্রতি মাসের নির্দিষ্ট টাইমে সেই  বিল দিতে হবে ব্যাংকে। 



আমাকে একদিন কথা প্রসংগে একদল ফ্রি ল্যান্সার বলতাছে- ভাইয়া আপনাকে বাংলাদেশের প্রত্যেক টিভি থেকে একটা সম্বর্ধনা দেয়া হবে কারন আপনি একদমই ফ্রি এবং ফ্রেশ ভাবে মানুষকে সাহায্য করে থাকেন, আপনি অনেকদিন থেকে  ফ্রি ল্যান্সার জগতের সাথে জড়িত আছেন আর আপনি কারো কাছ থেকে কখনো কোন খানে টাকা পয়সা চান নাই । আমি উত্তরে বলেছিলাম- নেম এবং ফেম এর জন্য কারো উপকার করি না। পূন্য বা নেকী হবে বিধায়ই মানুষের উপকার করে থাকি। যে দেশের টিভি বা রেডিও স্বাধীনতা বিরোধী বা দেশ বিরোধী দের গুড নিউজ একেবরে ফলাও করে প্রচার করে (১৯৯০-২০০৬ পর্যন্ত) সে দেশের টিভি ক্যামেরাগুলোতে বা নিউজ পেপার গুলোতে আমি মো: মাসুদুল হাসান  কখনো আমার ফেস দেখাতে চাই না কারন কাল হাশরের দিন সৃষ্টিকর্তার কাছে জবাবদিহি করতে হবে যে শয়তানের বংশধর যা করেছে তুমিও তো তাই করে আসলা। তাই প্রয়োজনে তৈরী হয়েছে সোশাল মিডিয়া ক্যামেরা বা ভিডিও ক্যামেরা। সো আমাদের ক্যামেরা ইন্টারনেটেই বিদ্যমান। আমার বাস্তব জীবনের এই সকল ক্যামেরা দরকার নাই যে সকল ক্যামেরা বা টিভি ক্যামেরা স্যাটেলাইটের কল্যানে একেবারে শতরু দেশের গভীর মরুভুমির ভেতর থেকেও শতরুরা বসে দেখতে যায়। আমরা যদি কখনো কোন সম্মেলন করি তবে সেটা শুধূ সোশাল মিডিয়া ক্যামেরা ভিত্তিক ই সম্মেলন হবে আর আল্টিমেটলি পরবর্তী সম্মেলনের মেইন ফোকাসই হবে পেপাল যেনো অন্তত পক্ষে  শুদু ফ্রি ল্যান্সারদের জন্য হলেও বাংলাদেশে চালু হয়। আমাদের  ও টিভি আছে যেমন ইউটিউব টিভি। তো উত্তরে বলতাছে যে ভাই অপমানিত হলাম। আমি বললাম যে দেশে মুক্তিযোদ্বারা চিরকালই অবহেলিত আর যে দেশের মুক্তিযোদ্বার এখনৈা প্রথম শ্রেনীর নাগরকিত্ব পায় নাই সেদেশে আমি নিজেকে প্রচার করে নাম কামাতে চাই না কারন হজম হবে না। যদি কখনো দেখি যে মুক্তিযোদ্বারা এ ক্লাস সিটিজেনশিপ পেয়েছে (মুক্তিযোদ্বা বলতে তাকেই বোঝানো হয় যে খালি গলায় ৭১ এর ২৫ শে মার্চ  থেকে ১৬ ই ডিসেম্বরের মধ্যে জয় বাংলা বলেছে)। আগে মুক্তিযোদ্বার সম্মানিত হোক পরে নিজেকে সম্মানিত করবো।   প্রয়োজনে এই দেশ ছেড়ে অন্য দেশে যাইয়া নিজেকে সম্মানিত করবো। কয়েকদিন আগে সেই ভাবে সম্মান ও পাইলাম।(আমার এক ক্লায়েন্টেএর ওয়েবসাইটে সোশাল মিডিয়া মার্কেটার হিসাবে আমার নাম লিষ্টিং করা আর উনাকে টিভিতে ডেকেছিলো সাক্ষাৎকার নেবার জন্য- তখন বুঝেছি এইটা আমার পাওনা ছিলো)। বাংলাদেশে পার মিনিট ৬টাকা ৯০ মিনিট পয়সা হারে ২০০২ সালের একটেল থেকে শুরু করে এখণ পার সেকেন্ড এক পয়সা হারে রবি- এয়ারটেল মোবাইল নাম্বারে কথা বলা যায়। একবার ভেবে দেখেছেন সেই সময়কার গ্রাম বাংলার ফ্রি ল্যান্সার রা যারা শুধূ মোবাইল কানেকশনের উপর ভিত্তি করে ফ্রি ল্যান্সিং এবং আউটসোর্সিং সম্পর্কে জেনে তাৎক্ষনিক ভাবে দেশ ছেড়ে চলে যাইয়া ইউরোপ আমেরিকার নাগরিকত্ব নিয়ে ফ্রি ল্যান্সার হিসাবে কাজ করতাছে তারা আজকে কেমন তারা  কেমন পজিশনে আছে।আর আজকে পার সেকেন্ড ১ পয়সা হারে কথা বলা যায়, সব কিছু দেয়া আছে ইউটিউবে আর তারপরেও লোকজন টাকা দিয়ে কাজ শিখে লোকাল ল্যানসিং প্রথা শুরু করেছে- কি এক আকাশ পাতাল তফাত। আমরা যেখানেই ছিলাম সেখানেই আছি- মাঝে জমা হয়েছে শুধু জ্ঞান, বয়স,  উপার্জন এবং ব্যালান্স। 


No comments:

Post a Comment

Thanks for your comment. After review it will be publish on our website.

#masudbcl

Marketplace English Tutorial. Freelancing.Outsourcing.

ফ্রিল্যান্সার/মার্কেটপ্লেস/আউটসোর্সিং জগতে পজিটিভ থাম্ব বলতে কি বোঝেন?

ইন্টারনেটে এখন অনেক খানে পজিটিভ থাম্বের ব্যবহার আছে। যে কোন পোষ্টের নীচে অনেক সময় থাম্ব ব্যাপারটা দেখা যায়। আবার অনেকখানে অনেক ওয়েবসাইটে আছে...