Translate

Thursday, October 1, 2020

পাইওনিয়ার- ফ্রি ল্যান্সার এবং আউটসোর্সিং জগতে একটি বিশ্বস্ত নাম।

  পাইওনিয়ার যাত্রা শুরু করে ২০০৫ সালে। যখন ফ্রি ল্যান্সার এবং মার্কেটপ্লেস জগত শুরু হয় তখন প্রথম যে জিনিসটা সকলেরে কাছে প্রয়োজন হয় তা হইতাচে রিল্যায়াবল বা ট্রাস্টেড পেমেন্ট মেথড। 


২০০২ সালে যখন ফ্রি ল্যান্সিং এবং আউটসোর্সিং জগত টা বাংলাদেশে রান করে সর্বপ্রথম ওডেস্কের মাধ্যমে তখন প্রথম দেখা যায় পেপাল এবং এলার্টপে নামের দুইটা ইন্টারনেট ব্যাংকিং। ব্যাংক চেক পলিসিও ছিলো। অনেক অনেক বার অুনরোধ করা হয় মার্কেটপ্লেস ওয়েবসাইট গুলোকে- ওয়েষ্টার্ন ইউনিয়ন বা মানি গ্রামের মতো প্রোগ্রামগুলোকে এড করারর জন্য। কিন্তু তাদের মন ভেজানো যায় নাই। তারা কোনভাবেই সেটা এড করবে না। যতোবার বলা হয় ততোবারই বলা হয়েছে যে- এইটা ইন্টারনেট ব্যাংকিং এর মাধ্যমে সম্ভব। পেপাল আমেরিকান ব্যাংকে কোম্পানী এবং এলার্টপে কানাডিয়ান ব্যাংকিং কোম্পানী ছিলো। অনেক অনেক মার্কেটপ্লেস আছে এখন পর্যন্ত যারা সম্পূর্ন গ্রাহকের উপর ভিত্তি করে তাদের কোম্পানী বা প্রোগ্রাম চালু করে। তেমনি ওডেস্ক ও মতামতের আয়োজন করে পেপাল, এলার্ট পে, ব্যাংকে চেক পদ্বতি চালু করে। আমেরিকান রা চেক পদ্বতির সাথে অনেক পরিচিত ছিলো। কারন তারা প্রায়শই পে চেক পাইয়া থাকে। আর সেটা তাদের দেশের সরকার থেকে দেয়া হয়- যে কোন বিপদে আমেরিকানরা পে চেক পাইয়া অভ্যস্ত। তাদের দেশের সরকার তাদেরকে সাহায্য করে তাকে আর আমাদের দেশের লোকজন জনগনের হত মাইরা খাইয়া ফালায়। এইজন্য ই আজকে বাংলাদেশের মতো  অজো পাড়া গায়ের মধ্যেও বাংলাদেশী ছেলে বা মেয়েরা ফ্রি ল্যান্সিং এবং আউটসোর্সিং এর কাজ করে যাইতাছে। পেপাল আমাদের দেশে চালু ছিলো না তখন- বলতে গেলে ওয়েবসাইট ই এক্সেস করা যাইতো না।  আর এলার্টপে ওপেন হতো। মনে পড়ে - ওডেস্কে আমার প্রথম উপার্জন ছিলো ২ ডলার এবং ১০ বা ১৫ ডলার হবার পরে ওডেস্ক থেকে এলার্ট পে তে ট্রান্সফার করা যাইতো। তারপরে এলার্ট পে থেকে সারা দেশের যাদের লাগতো বা যারা ইউরোপিয়ান আমেরিকান নাগরিক তারা কিনে নিয়া যাইতো - এক কথায় সাহায্য করতো কারন তারা তাদের ইউরোপিয়ান বা আমেরিকান ব্যাংক একাউন্টে  সেটা উইথড্র করতে পারতো এবং সেটা আমাদের জন্য অনেক শোভন হতো। এইভাবে ২০০৫ সালে পাইওনিয়ার নামের আরেক জায়ান্ট কোম্পানীর আবির্ভাব ঘটে যারা আজো সারা বিশ্বে সমানতালে সার্ভিস দিয়ে যাইতাছে। এই পৃথিবীতে এমন কোন ফ্রি ল্যান্সার বা মার্কেটপ্লেস ওয়ার্কার নাই যাদের পারসোনাল পাইওনিয়ার একাউন্ট নাই।  

এলার্টপে পরে পরিবর্তিত হয়ে পাইজা তে নাম নেয়। পাইজা  নাম নেবার ফলে অনেক সময় অনেক বিড়ম্বনার মুখে পড়তে হয়। যখন কোন প্রজেক্ট হাতে থাকে আর সেটা যদি অনেক ডিপ প্রকৃতির প্রজেক্ট হয়ে থাকে  তাহলে কাজ করার সময়ে  অনেক সময় পারস্পরিক নতুন নতুন মানুষের সাথে যোগাযোগের প্রয়োজন হয়। এতে করে অনেক সময় কাজের জন্য বাড়তি একটা স্প্রিড পাওয়া যাইতো। অনেককেই ফ্রিতে কাজ শিখানো হতো বা শিখাতে হতো সারা দেশের যারা বড় মাপের ফ্রি ল্যান্সার তাদের নির্দেশ অনুসারে। তো যখন কোন মেয়েকে অনলাইনে (ইন্টারনেটে বিভিন্ন ম্যাসেন্জারের সাহায্যে) কাজ শিখানো হতো ফ্রি তে আর মার্কেটপ্লেস একাউন্ট ওপেন করার পরে যখন পেমেন্ট সল্যুশন নিয়ে কথা হতো তখন অনেক সময় মন ভূলে বলা হতো- পেমেন্টর জন্য পাইজা খূলে ফেলো। কোন মেয়ে যদি আগে থেকে না জানতো তাহলে সে সেই সময় শরমে পড়ে যাইতো। ফলে পরে আবার তাকে ভুল শোধরাইয়া বলতে হতো যে- পাইজা আসলে একটা ব্যাংক একাউন্ট। এই মূহুর্তে  এইটা ইউএসএ জাষ্টিস ডিপোর্টমেন্ট বন্ধ করে রেখেছে। ফলে একসময়কার জনপ্রিয় ব্যাংক আজকে বন্ধ হয়ে গেছে। পায়জার সাথে বাংলাদেশে ব্যাংক  এশিয়ার সরাসরি যোগাযোগ ছিলো - মানে এফিলিয়েট ছিলো। সেই মার্ক করা ব্যাংকের সাথে এখন আবার পেপালের রেমিটেন্স আনা হইতাছে। যদি পাইজার সাথে কানেক্টেড থাকার কারনে  ব্যাংক এশিয়ার নামও ডিপার্টমেন্ট অফ জাষ্টিসে থেকে থাকে তাহলে সেটা পেপাল এপরুভাল পাবার ক্ষেত্রে বাধা বা অন্তরায় হয়ে দাড়ায় কিনা কোন ভাবে সেটা ভেবে দেখতে হবে। যদি কোন সমস্যা থাকে তাহলে সকল ফ্রি ল্যান্সারের স্বার্থে ব্যাংক এশিয়ার উচিত হবে পেপালের সাথে দূরত্ব বজায় রাখা। কারন ফ্রি ল্যান্সার রা  পেপাল এপরুভাল পাবার জণ্য চেষ্টা করে যাইতাছে এবং শুধূমাত্র ফ্রি ল্যান্সার দের জন্য হলেও যেনো পেপাল চালু হয় সেজন্য অনেকেই চেষ্টা করে যাইতাছে। তবে সবচেয়ে বেশী সংখ্যক বুথ থাকার কারনে এবং এটিএম এবং ব্রাঞ্চ থাকার কারনে ডাচ বাংলা ব্যাংক হবে সকলের কাছেই ১ নাম্বার চয়েজ। তবে ব্যাংক এশিয়ার স্বাধীন মাষ্টারকার্ড  প্রোগ্রামটা প্রশংসার দাবীদার। অনেক ফ্রি ল্যান্সার দের অনেক ভালো রকমের উপকার করেছে ব্যাংক এশিয়ার স্বাধীন মাষ্টারকার্ড এবং ঈষ্টার্ন ব্যাংকের আকুয়া মাষ্টার কার্ডপাইওনিয়ারের সাথেও মাষ্টারকার্ডের যোগাযোগ আছে। পাইওনিয়ার মাষ্টার কার্ডের মাধ্যমে আপনি মাষ্টারকার্ড লোগো সম্বলিত বিশ্বের যে কোন সার্ভিস ব্যবহার করতে পারবেন, যে কোন এটিএম থেকে বা বুথ থেকে যে কোন দেশের মুদ্রা তুলতে পারবেন। 

Payoneer Mastercard  সুবিধা নিয়ে অনেকেই সারা বিশ্বে বিভিন্ন খানে আগে ব্যবহার করেছে। প্রথম দিকে বাংলাদেশের যে কোন প্রাইভেট ব্যাংকে দাড়িয়ে থেকে পাইওনিয়ারে মানি সেন্ড করা যাইতো নিয়মিত ব্যাংক টু ব্যাংক ট্রান্সপার হিসাবে। পারস্পরিক মানি লেনা দেনা এবং সকল ধরনের পেমেন্ট নেওয়া, বিজনেস পেমেন্ট নেওয়া এবং সেন্ড মানি সেন্ড মানি সেন্ড করা সহজ হয়েছে। ধরেন আমার কাছে পাইওনিয়ার কার্ড আছে। আপনি জার্মাণীতে আছেন । আপনার এই মূহুর্তে টাাকা দরকার যা এক সপ্তাহের মধ্যে আপনার খাবারের খরচ জোটাতে হবে। বিদেশে কোন বিপদের মাঝে আপনি আছেনি। আপনি বাংলাদেমে কল  দিয়ে বললেন ডে- তার পআওিনিয়ার একাউন্টে ৫০,০০০ টাকা সেন্ড করে দিতে। আপনার নিকটস্থ লোক ব্যাংকে গেলো এবং আপনার পাইওনিয়ারের দেয়া ব্যাংক একাউন্টে ৫০,০০০ টাকা ব্যাংক টু ব্যাংক ইন্টারন্যাশনাল ট্রানজেকশন করলো। আপনি ৩/৪ দিনের মদ্যে সে টাাকা ডলার হিসাবে আপনার পাইওনিয়ার একাউন্টে পেয়ে গেলেন। এখানে আপনি আমেরিকান একটা ব্যাংক একাউন্টের ফ্যাসিলিটজ ব্যবহার করে লেনাদেনা টা সম্পূর্ন করলেন এবং বাংলাদেশ তার প্রাপ্ত সুবিধাদি থেকে বঞ্চিত হবে কারন বাংলাদেশ সরকার সাথে সাথে সেইটা এনডোর্স করতে পারে নাই বা যে ব্যাংক আপনি টাকা সেন্ড করেছন সেই ব্যাংক এনডোর্স ফ্যাসিলিটজ নাও দিতে পারে বাংলাদেশকে। তার উপরে সেখানে মাষ্টারকার্ড লোগো আছে। সেই লোগো দিয়ে যে মানুষটা বিপদে আছে সেই মানুষটা তার নিজস্ব খাবারের ব্যবস্থা করে ফেলাইলো। ঠিক যে নিয়মে ডুয়াল কারেন্সী ক্রেডিট এক্সচেনজ হয়- সেই  নিয়মটা হয়তো এইখানে প্রযোজ্য হয় নাই কারন যে ব্যাংক টাকা পাঠানো হয়েছে ডলারে কনভার্ট
করার জন্য সেই ব্যাংক হয়তো নিয়মিত মানের ব্যাংক না বা অনলি রেমিটেন্স কালেকশন করার ব্যাংক বা বাংলাদেশ সরকারের সাথে তালিকাভুক্ত না। এই দেশে লক্ষ কোটি লোক চুরি/বিাটপারি/দালালি করে চলে। বাংলাদেশের মধ্যে রাজধানী মহর সবচেয়ে বড় চিটার বাটপার দের শহর বলা হতো একসময়। সেই চিটার বাটপার দের থেকেও বড় চিটার বাটপার আমি দেখেছি ময়মনসিংহে -একটা লোকাল এলাকাতে। এখানকার একটা তারিকাগ্রস্থ জ্ঞাতি গোষ্টী  এতো পরিমান ধুরন্দর যে- স্থানীয় আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিণীও অনেক সশয় হিম শিম খেয়ে যায়। ময়মনসিংহ বিভাগীয় শহরে র যতো ধরনের আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিণীর সদদ্য রা আছেন তারা যদি নিরবিচ্ছিন্ন সার্ভিস দিয়ে যাইতো তাহলে হয়তো এই মাপেরে ধুরন্ধর দেখা হইতো না(যারা ্রকম ক্যাটাগরির তাদের ম্যাক্সিমাম লোকেরই জাতীয় পরিচয়পত্র নাই। বর্তমান সরকারের নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের অধিদপ্তর - জাতীয় পরিচয়পত্র অনুবিভাগ। জাতীয় পরিচয়পত্র এখন আর কোন প্রজেক্ট নাই।এইটা এখন সরকারি অধিদপ্তর। তাই আপনার উচিত হবে নিজ দ্বায়িত্বে জাতীয় পরিচয়পত্র আইন জেনে তা কার্যকর করে ফেলানো। 

আপনার যদি জাতীয় পরিচয়পত্র না থাকে তাহলে আপনি কখনোই পাইওনিয়ার মাষ্টারকার্ড পাবেন না। কারন পাইওনিয়ার মাষ্টারকার্ড এর জন্য আবেদন করতে গেলে আপনাকে অতি অবশ্যই জাতীয় পরিচয়পত্র থাকতে হবে। জাতীয় পরিচয়পত্র ছাড়া এদেশে এখন অনেক কাজই হইতাছে না। যেমন: 

  • জমি- জমা, ফ্ল্যাট বাড়ির দলিল পত্রাদি লেখা। বৈধ জাতীয় পরিচয়পত্র না থাকলে হবে না। 
  • বিয়ে/কাবিন/নিকাহ/শাদী- প্রাপ্তবয়স্ক অবস্থায় আপনাকে বৈধ জাতীয় পরিচয়পত্র দেখাতে হবে নয়তো কাবিন নামা পাবেন না। 
  • সিটি কর্পোরেশন বা বিভাগীয় সদর এলাকাতে আপনি পুলিশ ভাড়াটিয়া আইনে ভেরিফায়েড না হলে সিটি িএলাকাতে আপনি বসবাস করতে পারবেন না। আপনার যদি  প্রাপ্ত বয়স্কে জাতীয় পরিচয়পত্র না থাকে তাহলে আপনি দেশের সকল সুবিধা থেকে  বঞ্চিত হবেন। 
  • এককথায় আপনাকে বহিরাগত বা অন্য দেশী হিসাবে বিবেচনা করা হবে। 
পাইওনিয়ার একাউন্ট ওপেন করা থাকলে আপনি একজন পাইওনিযার একাউন্ট অনার হয়ে আপনি আরকেজন পাইওনিয়ার একাউন্টে মানি সেন্ড করতে পারবেন। তবে অনেকসময় ১০০০ ডলার লেনাদেনা না হলে একজন আরেকজনকে সেন্ড মানি করতে দেয় না। আপনি মার্কেটপ্লেস থেকে হাজারো ডলার উপার্জন করে সেটা আপনার দেশের বাহিরে অবিস্থত বন্ধুকে দিয়ে দিলেন তার পাইওনিয়ার একাউন্টে এবং আপনি তার বাসো থেকে বা তার স্ত্রীর কাছ থেকে নগদ ক্যাশ টাকা নিয়ে নিলেন বা আপনি যাকে টাকা পাঠালেন সে কল দিয়ে তার বাসাতে বলে দিলো যে - আপনাকে নগত টাকা পেমেন্ট করে দিতে। এইখানে বাংলাদেশ সরকার বিকেটা ট্রনাজেকশন রেকর্ড মিস করলো এবং সামান্য কিছু রেমিটেন্স ও হয়তো মিস করলো। কারন আপনি যদি আপনার ফ্রেন্ডের পাইওনিয়ার একাউন্টে ডলার সেন্ড না করে আপনি যদি সেটা বাংলাদেশ ব্যাংকের মাধ্যমে উইথড্র করতেন তাহলে হয়তো বাংরাদেশ সরকার সে রেমিটেন্স থেকে বঞ্চিত হলো। আবার ফরেন ট্রানেজেকশন হবার কারনে বৈদিশিক সরকার আপনার সে ফ্রেন্ডের কাছে পাঠানো ডলারের ট্রানজেকশন রেকর্ড রাখবে এবং প্রয়োজেন বছর শেষে হয়তো কিছু আর্থিক বা ফাইনান্সিয়াল ফ্যাসিলিটজ ও আদায় করতে পারে কারন সব ব্যাংকের তো একই কাজ- ব্যবসা করা। তেমনি পাইওনিয়ারও ইন্টারনেট বেজড একটা ব্যবসায়িক ব্যাংক যারা সাার বিশ্ব জুড়ে ব্যবসা করতাছে। পাইওনিয়ার কে একসময় প্রমোট করা হতো প্রচুর ফ্রি ল্যান্সার দের মাধ্যমে। আমাদের দেশে এখণ যদি কোন ছেলে মেয়ের কাছে (বয়স ২৩ হবার পরে) বাংলাদেশের জাতীয় পরিচয়পত্র না থাকে তাহলে ও তার কাছে তার বাবার বা মায়ের নামে তৈরী করা পাইওনিয়ার মাষ্টারকার্ড আপনি পাবেন খোজ করলে। পাইওনিয়ার মাষ্টারকার্ডে যদি আপনি কোন লেনাদেনা করে না থাকেন তাহলে শুধূ আপনার নাম এবং ডিটেইলস টা বৈদিশিক সরকার এবং তাদের ডাটাবেজে নথিভুক্ত থাকবে। আজকে থেকে পাইওনিয়ারের নতুন ঘোষনা এসেছে- যারা বিগত ছয় মাসে কোন ধরনের লেনাদেনা করে নাই তাদের কার্ড বাতিল করা হবে কারন একটা কার্ড তৈরী করা থেকে শুরু করে মেইন টেই করার জন্য প্রচুর খরচ করতে হয় কার্ড প্রদানকারী কোম্পানীকে। আর বর্তমানের নিউইয়র্ক পাইওনিয়ারের কার্ড প্রদানকারী সার্ভিস সংস্থা পরিবর্তন হয়ে সেটা চলে গেছে আয়ারল্যান্ডের একটা সংস্থর কাছে। তাই অনেক ধরনরে পরিবর্তন আসতাছে। একই সাথে - এ যাবত কালে যাদের পাইওনিয়ার শুধু কার্ড নেয়া ছিলো কিন্তু তাদের কো লেনাদেনা রেকর্ড নাই তাদের আর কার্ডের কোন ভ্যালূ থাকলো না। কার্ড থাকুক বা না থাকুক পাইওণিয়ার একাউন্ট থাকবে সকলের ই। আর যাদের ব্যাংক একাউন্ট আছে তারা ব্যাংক একাউন্টও রেমিটেন্স আনতে পারবে অতি সহজে।  আর যদি লেনাদেনার রেকর্ড থাকে তাহলে যে দেলে সাথে লেনাদেনা আছে সেই দেশের সাথে তার অল ডিটেইলসে রেকর্ড থাকবে। 
 





আর আপনার যদি পাইওনিয়ার একাউন্টের সাথে ব্যাংক একাউন্ট এড করা থাকে তাহলে আপনি নিয়মিত বিরতিতে রেমিটেন্স আনতে পারবেন একই নিয়মে। করোনার কারনে অনেকের ই লেনাদেনা কম আছে সে ক্ষেত্রে তাদের  কার্ডে যদি শেষ ছয় মাসের কোন লেনাদেনা না থাকে তাহলে সেই কার্ডটি আয়ারল্যান্ডের কার্ড  ডিষ্ট্রিবিউশন কোম্পানী ডিএকটিভেট করে দেবে কারন এত করে তাদের প্রচুর পরিমানের খরচ বেচে যাবে। আবার আপনার যদি কার্ডের প্রয়োজন হয় তাহলে আপনি আবার কার্ড অর্ডার  িদিয়ে নিয়ে  আসতে পারবেন এবং প্রয়োজন মতো সারা বিশ্বে ব্যবহার ও করতে পারবেন। 








(To Be continue)

No comments:

Post a Comment

Thanks for your comment. After review it will be publish on our website.

#masudbcl

Marketplace English Tutorial. Freelancing.Outsourcing.

Vote for Trump. Vote for Pence. Vote for Trump Pence. Vote for ARPP. Vote for 2020-2024

  https://t.co/gsFSghkmdM pic.twitter.com/ao85KjMeBW — Donald J. Trump (@realDonaldTrump) October 27, 2020 Vote from: http://www.vote.dona...